আজ ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই আগস্ট, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে দেশবাসীকে পবিত্র ঈদুল আযহা’র শুভেচ্ছা জানালো তেজগাঁও শিল্প অঞ্চল থানার সাবেক ছাত্রলীগ এর প্রতিষ্ঠাতার ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অমিত হাসান হৃদয়

নিজস্ব প্রতিবেদনঃ

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক মাইনুল ইসলাম খান নিখিলের পক্ষে থেকে দেশের সর্বস্তরের জনগণকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানিয়েছেন তেজগাঁও শিল্প অঞ্চল থানার সাবেক ছাত্রলীগ এর প্রতিষ্ঠাতার ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান যুবলীগ কর্মী “অমিত হাসান হৃদয়”।এক শুভেচ্ছা বার্তায় তিনি জানান, ত্যাগের মহিমায় পবিত্র ঈদ-উল-আযহা মহান আল্লাহর প্রতি অপরিসীম আনুগত্যের অনুপম নিদর্শন।

মহান আল্লাহর নির্দেশে হযরত ইব্রাহীম (আঃ) প্রাণপ্রিয় পুত্র হযরত ইসমাইল (আঃ) কে কুরবানী করতে উদ্যত হয়ে আল্লাহর প্রতি যে আনুগত্য ও ভক্তি প্রদর্শন করেছেন তা অতুলনীয় সমগ্র বিশ্ববাসীর কাছে এ ত্যাগ চিরসমুজ্জ্বল ও অনুকরণীয় হয়ে থাকবে। একটি শান্তিপূর্ণ ও সহনশীল সমাজ বিনির্মাণে ধৈর্য্য ও সহনশীলতা অপরিহার্য।পবিত্র ঈদ-উল-আযহা মহান আদর্শ ও শিক্ষাকে আমাদের চিন্তা ও কর্মে প্রতিফলিত করতে হবে। পবিত্র ঈদ-উল-আযহা মুসলিম জাতির ঐক্য, সংহতি ও ভ্রাতৃত্ববোধকে আরো সুসংহত করবে বলে আমার বিশ্বাস। ঈদ-উল-আযহা সবার জন্য আনন্দপূর্ণ ও কল্যাণকর হোক।

দেশের বিদ্যমান ক্রান্তিলগ্নে সব ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে ঈদের আনন্দ নিজেদের ভাগ করে নিতে হবে। তাই পবিত্র ঈদুল আযহার শিক্ষা থেকে আমাদের অঙ্গীকার হোক সব হিংসা, বিদ্বেষ ও হানাহানি থেকে মুক্ত হয়ে ন্যায়, সাম্য, ঐক্য, ভ্রাতৃত্ব, দয়া, সহানুভূতি, মানবতা ও মহামিলনের এক ঐক্যবদ্ধ ও ভালোবাসাপূর্ণ সমাজ এবং দেশ গঠনের জন্য একযোগে কাজ করা।

তিনি আরো বলেন,বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের আঘাতে এবারে হয়তো পূর্বের ন্যায় সবাইকে নিয়ে ঈদের আনন্দ উদযাপন করা সম্ভব হবে না। তবুও আমরা যে যেখানেই থাকি না কেন ঘনিষ্ঠজন, নিকটজনসহ সবাই ঈদের আনন্দ ভাগ করে নেব। কোনো অসহায় ও দুস্থ মানুষ যেন অভুক্ত না থাকে সেজন্য যারা সচ্ছল ব্যক্তি তারা যেন তাদের পাশে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন, যাতে মানুষরাও ঈদের আনন্দের অংশীদার হতে পারে।

করোনাভাইরাসের মহামারিতে এখন বিশ্ব সম্প্রদায়ের মধ্যে বিরাজ করছে ভয় ও আতঙ্ক। এছাড়াও করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা, জনসমাগম এড়িয়ে চলার জন্য সবাইকে আহবান জানান। এবং এ অদৃশ্য করোনার কবল থেকে মানুষকে রক্ষা করতে আমি কায়মনোবাক্যে মহান রাব্বুল আলামীনের নিকট দোয়া করি। পবিত্র এ দিনে বাংলাদেশের প্রতিটি গৃহে প্রবাহিত হোক শান্তির অমিয় ধারা। পবিত্র ঈদুল আযহায় আমি এই কামনা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরও খবর